স্বাস্থ্য কথা

ভুড়ি বা পেটের মেদ কমানোর সহজ উপায় জেনে স্লিম হোন

পেটের মেদ কমানো

পেটের মেদ কমানো: উফফ! দিন দিন আমার ভুঁড়িটা ঢাকের মত চেহারা নিচ্ছে। কিছুতেই মেইনটেইন রাখতে পারছি না। আজকালকার বিজি লাইফে নিজের ওজনের দিকে খেয়াল রাখাটা আমাদের সবার জন্য একটা বড় প্রবলেম হয়ে দাঁড়িয়েছে। আর যার ফলে বেলি ফ্যাটও যেন সীমাহীন ভাবে বেড়ে চলেছে। যেটা আমাদের কনফিডেন্স, আমাদের অ্যাটিটিউড এবং আমাদের দৈনন্দিন জীবনের বিভিন্ন এক্টিভিটিস গুলোর উপর প্রচণ্ডভাবে প্রভাব ফেলতে শুরু করে।

পেট কমানোর ব্যায়াম

আমি সিক্স প্যাক বা এইট প্যাক বডি বানানোর কথা বলছিনা। কিন্তু একটা মেদহীন সুন্দর পেট সবাই কামনা করতে পারে। এটা মেইনটেইন করতে পারলে আমাদের মধ্যে যেন আলাদা একটা কনফিডেন্স আসে।

পেট কমানোর ব্যায়াম

যদি আপনাকেও নিজের হাইট কিংবা ওয়েট অনুযায়ী আপনার যে সাইজের প্যান্ট পরার কথা, তার থেকে বিগার সাইজের প্যান্ট পড়তে হচ্ছে। তাহলে আপনারও সময় এসে গেছে এই ব্যাপারে একটু সিরিয়াস হওয়ার। কারণ এতে আপনার আউটলুক এবং ফাস্ট ইম্প্রেশন এর উপর একটা খুবই বাজে প্রভাব পড়ে।

একটা খুব বড় ভুল যেটা অনেকেই করে সেটা হল- হয় ডায়েড করে কিন্তু এক্সসাইজ করে না। আর নয় তো এক্সেসাইজ করে কিন্তু ডায়েট করে না। এটা একেবারেই ঠিক না। ডায়েট এবং এক্সারসাইজ দুটোই ইম্পরট্যান্ট একটা সুন্দর পেট পাওয়ার জন্য।

আজকের এই লেখাতে কিভাবে আমরা একটা সুন্দর ফ্লাট বেলি শুধুমাত্র কিছু ইজি স্টেপ ফলো করে পেতে পারি সেটাই আলোচনা করব। তো আমি কিছু এক্সারসাইজের কথা বলব যেগুলি আপনার অবশ্যই করা দরকার। পাশাপাশি থাকবে এমন কিছু ডায়েট টিপস যেগুলো আপনি ফলো করে চলতে পারলে কিছুদিনের মধ্যেই একটা ফ্ল্যাট পেট পেয়ে যাবেন। সঙ্গে সঙ্গে একটি হেলদি লাইফও লিড করতে পারবেন। তো চলুন শুরু করা যাক।

তো সবার প্রথমে দেখে নেয়া যাক, কিছু এক্সারসাইজ যেগুলো বেলি ফ্যাট কমাতে সব থেকে বেশি ইফেক্টিভ। আমি মেইনলি বিগিনারসদের জন্য তিনটি বেসিক এক্সারসাইজ নিয়ে আলোচনা করব। যেগুলো কেউ চাইলে বাড়ি বসেও করতে পারবে। আর যার জন্য কোনো এক্সট্রা টুলেরও দরকার পড়বে না।

Exercise No 1: Crunches

বেলি ফ্যাট বার্নিং এর জন্য সবচেয়ে ইফেক্টিভ হল ক্রানচেস। এটা অনেক রকমভাবে অনেক রকম অ্যাঙ্গেল থেকে করা যেতে পারে। আমরা মেইনলি ক্রানচেস এর দুটি এক্সারসাইজ করব।

দ্রুত মেদ কমানোর উপায়
  • Twist Crunches: টুইস্ট ক্রানচ করার সময় আপনি চেষ্টা করবেন যতটা সম্ভব পেটের মিডিল পোর্শনে প্রেসার দেওয়ার জন্য। এভাবে আপনি টুইস্ট ক্রানচ টেন রেপ এ তিন সেট করবেন।
  • Side Crunches: এর জন্য আপনাকে এক হাতে ভর করে বডিকে ব্যালেন্স করতে হবে। আর তারপর আস্তে আস্তে বেন্ড করতে থাকতে হবে। এভাবে বোথ সাইড করবেন। খেয়াল রাখবেন, মেইন প্রেসারটা যেন বেলির সাইড পোর্শনে পড়ে। এরকম টেন রেপ বোথ সাইড তিন সেট করতে হবে।

দেখা গেছে, এক পাউন্ড অর্থাৎ ০.৪৫ কেজি কমানোর জন্য প্রায় ২২ হাজারটা ক্রানচেস প্রয়োজন। এবার এক পাউন্ড মানে সাড়ে তিন হাজার ক্যালরি। তার মানে প্রতিটি ক্রানচ ০.১৫৯ ক্যালরি কমাতে সাহায্য করে। যদি আপনি মিনিটে ২০টি ক্রানচ করেন তাহলে মিনিটে তিন ক্যালরি খরচ করতে আপনি সক্ষম হবেন।

Exercise No 2: Plank

প্ল্যাঙ্ক বেলি ফ্যাট বার্নিং এর জন্য সবথেকে বেশি ইফেক্টিভ। যদি এটি একটু কষ্টসাধ্য। প্ল্যাঙ্ক করার জন্য আপনাকে দুই হাতে ভর করে আপ সাইড ডাউন হয়ে পা এবং হাতের কুনইর উপর ভর করে পুরো শরীরটাকে ব্যালেন্স করতে হবে। একই সাথে বডিটাকে স্ট্রেইট এবং স্টাডি রাখতে হবে।

পেটের চর্বি কমানোর সহজ উপায়

প্ল্যাঙ্ক করাটা কষ্টসাধ্য এই কারণেই বলছি, কারণ মাত্র এক মিনিট প্ল্যাঙ্কের মাধ্যমে আপনি অনেকখানি ফ্যাট রিডিউস করে ফেলতে পারবেন। আর আপনি খেয়াল করলে দেখতে পারবেন, অনেকখান সোয়েটিংও হচ্ছে। তবে মাথায় রাখবেন পরপর দু’বার প্ল্যাঙ্ক করার মাঝে সামান্য রেস্ট নিলে ভালো হয়।

Exercise No 3: Jogging

ডেইলি বিজি রুটিনের মধ্যে আমাদের বেশির ভাগেরই জগিং করার সময় হয়ে উঠে না। জগিং আমাদের মেটাবলিজমকে বুস্ট করে। যেটা ফ্যাট কমাতে অনেকটা সাহায্য করে।

ভুড়ি কমানোর ব্যায়াম

সকালে ঘুম থেকে উঠে অন্তত কুড়ি থেকে ত্রিশ মিনিট জগিং করতে পারলে খুবই ভালো। আর এখন টেকনোলজির আশীর্বাদে জগিং করার জন্যও বাইরে বেরোনোটা আবশ্যক না। যদি দূর্ভাগ্যবশত আপনার বাড়ির আশেপাশে যদি কোন পার্ক বা ফিল্ড না থেকে থাকে তবে ঘরে বসেই ট্রেডমিল এর মাধ্যমে আপনি জগিং করে নিতে পারবেন।

মনে রাখবেন, আপনার আসল উদ্দেশ্য নিজের বেলি ফ্যাটটাকে কমানো। আর জগিং সেটাকে অনেকটা ইজি করে দেয় প্রচুর পরিমাণে সেটিং এর মাধ্যমে। এক্সারসাইজের সাথে একটি হেলদি ডায়েটও বেশ জরুরী।

বেলি ফ্যাট কমানোর জন্য যে মেইন ব্যাপারটা মেইনটেইন করতে হবে সেটা হলো “Calories in < Calories out”।

পেটের চর্বি কমানোর সহজ উপায়

বেলি ফ্যাটের সমস্যাটা বড় ছোট, ছেলে মেয়ে সব রকম মানুষের জন্যই একটি বড় প্রবলেম। তাই সবার ডায়েটও আলাদা হওয়া উচিত। তবে কিছু এমন কমন ফুড রয়েছে যেগুলো বেলি ফ্যাট কমানোর ইচ্ছা থাকলে সবারই বর্জন করা উচিত। পাশাপাশি কিছু কিছু ফুড রয়েছে যেগুলো রেগুলার বেসিসে গ্রহণ করা উচিত।

ওজন কমানোর উপায়

প্রথমে দেখে নেয়া যাক, কোন কোন ফুডগুলো বর্জন করা উচিত –

  • সুইটসঃ একটা সুইট ফ্ল্যাট স্টোমাক পেতে চাইলে আপনাকে সুইটস অর্থাৎ মিষ্টি জাতীয় জিনিসগুলো খাওয়াই সবার আগে বাদ দিতে হবে। কারণ এতে প্রচুর পরিমাণে ক্যালরি থাকে।
  • ফাস্ট ফুডঃ এটা সবাই জানে। তাই আর বেশি কিছু বলার কোন প্রয়োজন নেই।
  • আলুঃ মাত্র ১০০ গ্রাম আলুতে প্রায় ৭৭ ক্যালরি থাকে। তাই আলু একটা ফ্ল্যাট ডামির সব থেকে বড় শত্রু। তাই যতটা সম্ভব আলু খাওয়া কমিয়ে দেওয়ার চেষ্টা করুন।

এবার দেখা যাক, কিছু হেলদি ফুড যেটা আপনাকে একটা সুন্দর ফ্লার্ট স্টোমাক পেতে সাহায্য করবে –

এতে আপনাকে যে ডায়েটটি সাহায্য করবে তা হলো “জিরো বেলি ডায়েট”। চিন্তা নেই এই ডায়েটের ইনগ্রেডিয়েন্টসগুলোও তাদের নামের মতই সুন্দর।

৫০০ জনের উপর এই ডায়েটটি টেস্ট করা হয় এবং রেজাল্ট মাত্র ২ সপ্তাহে তারা অ্যাভারেজে ৭.২৫ কেজি কমাতে সক্ষম হয়েছিল। তো চলুন দেখা যাক, ‘Zero Belly’ ডায়েটটা আসলে কি?

ডায়েট প্লান

Z= Zero Belly Drink: ম্যাংগো জুস, লেমন জুস অথবা লেমন টি।
E= Eggs: এতে প্রচুর পরিমাণে প্রোটিং থাকে যেটা ফ্যাট বার্নিং এ সাহায্য করে।
R= Red Fruits: যেমনঃ লিচু, আপেল ইত্যাদি। এতে অনেক ফাইটোনিউট্রিয়েন্টস থাকে যেটা বেলি ফ্যাট কমাতে সাহায্য করে।
O= Olive Oil: প্রতিদিন ব্যবহারের জন্য যে কোনো সাধারণ অয়েলের পরিবর্তে অলিভ অয়েল ইউজ করলে এটা অনেকটা হেল্প করবে।
B= Berry: স্ট্রবেরি এবং ব্লু বেরি হলো একটা পারফেক্ট উদাহরণ যেটা ফ্যাট জমতে বাধা দেয়।
E= Extra Plant: আমাদের এখনকার ডায়েটের মেইন সোর্স ওয়েট প্রোটিনস। তো যতটা সম্ভব প্লান্ট প্রোটিনস দিয়ে আমাদের সেটাকে রিপ্লেস করতে হবে।
L= Lean Meat: অর্থাৎ চর্বিহীন মাংস। এটা খুবই ভালো একটি প্রোটিন সোর্স যাতে কিনা ফ্যাটের পরিমাণ খুবই কম।
L= Leafy Green: শাকসবজি বিশেষত উজ্জ্বল বা সবুজ রঙয়ের শাকসবজি এগুলো মূলত ফ্যাটস এর ফর্মেশন এ বাধা দেয়।
Y= Your Favourite: সবশেষে আপনার পছন্দের কিছু খাবার কিন্তু খুবই অল্প পরিমাণে। যাতে এই ডায়েটটা কম্পিলিট করতে পারেন।

আগে নিজে একটা টার্গেট করে নিন এবং মাত্র ২ সপ্তাহের জন্য এই ডায়েটস এবং এক্সারসাইজগুলি এপ্লাই করে দেখুন। আর নিশ্চিত আপনিও একটা পজিটিভ পরিবর্তন লক্ষ্য করবেন। মনে রাখবেন, “Laziness Fuels More Laziness, Activity Fuels More Activity’.

সবশেষে একটা ছোট্ট অনুরোধ, যদি ‘পেটের মেদ কমানো’ এই লেখাটি পড়ে আপনার নিজের জীবনের কোনো সমস্যার সমাধান খুঁজে পেতে সত্যিই এতটুকুও সাহায্য হয়ে থাকে, তাহলে অবশ্যই লেখাটি আপনার প্রিয়জন ও বন্ধুবান্ধব যারা হয়ত নিজের ভুঁড়ির জন্য অনেকটা ক্ষেত্রে নিজেকে লেস কনফিডেন্স ফিল করে তাদের সাথে শেয়ার করুন। কারণ কে বলতে পারে হয়তো তাঁদেরও একটু হলেও সাহায্য হয়ে যেতে পারে।

আর নিচে কমেন্ট করে আমাদের জানান নেক্সট কোন টপিক এর উপর আপনি লেখা দেখতে চান। কারণ আপনাকে সাহায্য করতে পারাটাই আমাদের আসল উদ্দেশ্য।

আরও পড়ুন- ওজন কমানোর উপায়

আপনার মতামত দিন

error: Content is protected !!