স্বাস্থ্য কথা

শীতকালে শিশুর যত্ন ও পরিচর্যার টিপস | Baby Care Tips Bangla

শীতকালে শিশুর যত্ন

শীতকালে শিশুর যত্ন: শিশুরা খুব কোমল এবং নমনীয় ত্বক নিয়ে জন্মগ্রহণ করে। শীতকালে জন্ম নেওয়া সন্তানের ত্বকের বিষয়ে নতুন বাবা-মা প্রায়শই উদ্বিগ্ন হন, যা অবাক হওয়ার মতো। একটি শিশুর ত্বক অত্যন্ত সংবেদনশীল এবং সঠিকভাবে ত্বকের যত্ন না নিলে সম্ভবত তার র্যাশ এবং অ্যালার্জি হতে পারে।

শীতকালীন ভাইরাস দ্বারা সমস্যা

শিশু ডাক্তার ফারজানা আলম মৌ বলেন যে- শীতকালে ঘটে যাওয়া অন্যতম প্রধান সমস্যা হ’ল বিভিন্ন ভাইরাস ছড়িয়ে দেওয়া। যা সময়ের মধ্যে যে কোনও ব্যক্তিকে সহজেই প্রভাবিত করে। এটি শীতকালীন সাধারণ রোগগুলির জন্ম দেয়। যেমন:

  • ইনফ্লুয়েঞ্জা এবং ব্রঙ্কিওলাইটিস , উভয়ই গলায় প্রভাবিত করে।
  • কফ এবং রাইনোভাইরাস, আপনার একটু অসাবধানতায় বেশ মারাত্মক হয়ে উঠতে পারে।
  • শ্বাস প্রশ্বাসের বিভিন্ন সংবেদনশীল ভাইরাস, যা শ্বাসযন্ত্রের ট্র্যাক্টকে প্রভাবিত করে এবং একটি সাধারণ কাশি থেকে শ্বাসকষ্টের মতো গুরুতর সমস্যা হতে পারে।

শীতে শিশুর যত্ন কেন জরুরি?

নবজাতক শিশুদের অবিরত যত্ন এবং সহায়তা প্রয়োজন যতক্ষণ না পর্যন্ত তারা এমন এক পর্যায়ে পৌঁছায় যেখানে তারা নিজেরাই চলতে পারে। শীতকালে আগমনকালে যত্নের এই প্রয়োজনটি আরও বেড়ে যায়।

বায়ুমণ্ডলে তাপমাত্রার ক্রমশ পরিবর্তনে নিজেকে সুরক্ষিত রাখতে এবং গুরুত্বপূর্ণ অঙ্গগুলি যাতে ভালভাবে কাজ করে সেজন্য শরীরকে অনেক প্রক্রিয়া শুরু করতে হয়। এজন্য শীত মৌসুমে অনেক তাপমাত্রার প্রয়োজন হয়। ফলে দেহের বেশিরভাগ এনার্জি শরীরের তাপমাত্রা যথাযথভাবে বজায় রাখার জন্য ব্যবহৃত হয়।

কিন্তু, শীতকাল হ’ল বিভিন্ন জীবাণু এবং ভাইরাস দ্বারা আক্রান্ত হওয়ার এক উপযুক্ত সময়। শীতকালে যত্নের অভাবে আপনার বাচ্চাটি রোগের জন্য সহজ টার্গেটে পরিণত হতে পারে এবং ছোট্ট শিশুটি অসুস্থ হওয়ার সম্ভাবনাও বেড়ে যায়।

শিশুদের মধ্যে শীতের সংক্রমণের লক্ষণ

শীতকালে শিশুদের যে সমস্ত সংক্রমণ ঘটে থাকে তাদের বেশিরভাগই মারাত্মক হয়ে থাকে। যা তাদের শরীরকে সহজে রোগাক্রান্ত করে তোলে। তাহলে চলুন দেখে নেয়া যাক, শিশুদের মধ্যে শীতের সংক্রমণের লক্ষণগুলো কি কি?

  • মারাত্মক কাশি যার ফলে বমি হয়
  • শ্বাস নিতে সমস্যা হয়। বাচ্চাকে হাঁফাতে দেখা যায় বা ছোট ছোট শ্বাস নিতে হয়।
  • ঘুমানোর সময় বা কাশি হওয়ার পরেও শ্বাসকষ্টের শব্দ হয়।
  • শ্বাসকষ্টের সংক্রমণের ফলে ফুলে যাওয়া ফুসফুসের কারণে বুকে ব্যথা হয়।
  • সর্দি, জ্বর , কাশি এবং সাথে মাথা ব্যথা ও অবসাদ লেগেই থাকে।

শীতকালে শিশুর যত্ন ও পরিচর্যার ১২টি টিপস

এখন নিশ্চয়ই ভাবছেন, শীতকালে শিশুর ত্বকের যত্ন কীভাবে নেওয়া যায়? শীতের এই হিমেল আবহাওয়া আমার নবজাতকে প্রভাবিত করবে। তাহলে কিভাবে আমার নবজাতক শিশুর যত্ন নিব?

কিভাবে তার রোগ প্রতিরোধ ক্ষমতা বাড়াব – ইত্যাদি নানা প্রশ্ন আপনার মাথায় ঘুরপাক খাচ্ছে। একেবারেই টেনশন নিবেন না। শীতে নবজাতক শিশুর যত্ন কীভাবে করা যায় তার জন্য এখানে রয়েছে বারোটি বুলেট টিপস।

১. আপনার হাত ঘন ঘন ধোয়া:

শীতকাল ফ্লু এবং সর্দি-কাশির সময়। নবজাতককে স্পর্শ করার আগে আপনি নিয়মিত হাত ধুয়েছেন কিনা তা নিশ্চিত করুন অথবা কোনও হ্যাণ্ড স্যানিটাইজার ব্যবহার করুন।

এটি আপনার কাছ থেকে কোনো জীবাণু আপনার সন্তানের কাছে যেতে বাধা দেবে। আপনার পরিচিত সকলকে এই সতর্কতা অবলম্বন করার অনুরোধ করা উচিত।

২. নবজাতককে বুকের দুধ খাওয়া বন্ধ করবেন না:

নবজাতককে বুকের দুধ খাওয়ানোই তার রোগ প্রতিরোধ ক্ষমতা বাড়ানোর সেরা উপায়। এটি তাকে ঠান্ডা ও রোগ সংক্রমণ থেকে দূরে রাখতে সহায়তা করবে। প্রথম ছয় মাস আপনার শিশুকে বুকের দুধ খাওয়ানোর চেষ্টা করুন।

৩. ভ্যাকসিনেশন সময়সূচী অনুসরণ করুন:

হ্যাঁ, শীতকালে প্রায়ই বাচ্চারা অসুস্থ হয়ে পড়ে এবং তাদের প্রতিরোধ ক্ষমতাও অনেকাংশে হ্রাস পায়। তাই আপনার নবজাতককে কোনও টিকা দেওয়ার সময়সূচী এড়িয়ে যাবেন না। বরং তা যেন সময় মতো পায় সেটা নিশ্চিত করুন।

এটি আপনার বাচ্চাকে শীতকালে সংক্রমিত হতে পারে এমন রোগগুলি থেকে সুরক্ষিত রাখতে সহায়তা করবে। মনে রাখবেন, সঠিক সময়ে তাকে তার প্রয়োজন মতো টিকা দেওয়া অত্যন্ত গুরুত্বপূর্ণ।

কারণবশত, যদি আপনার নবজাতক টিকা মিস করে তবে ডাক্তারকে ফোন করুন। পরের দিন তিনি আপনার ছোট্ট বাচ্চাটিকে টিকাটি দিতে পারেন কিনা সে সম্পর্কে ডাক্তারের সাথে যোগাযোগ করুন।

৪. রুমের মধ্যে একটি উষ্ণ তাপমাত্রা বজায় রাখুন:

শীতকালে আপনার বাসা এবং আপনার শিশুর ঘরটি আরামদায়ক এবং উষ্ণ রাখা বেশ চ্যালেঞ্জ। কঠোর শীতের মৌসুমে আপনার শিশুর শোবার ঘরে একটু গরম তাপমাত্রা বজায় রাখুন।

শীতল বাতাস যা রুমে প্রবেশ করে বাবুটির ঠাণ্ডা লাগাতে পারে এমন মনে হলে রুমের সমস্ত জানালা্গুলো বন্ধ রাখুন। তবে যাতে পর্যাপ্ত বায়ু চলাচল থাকে সে বিষয়টিও নিশ্চিত করুন।

৫. নবজাতকের আরামদায়ক এবং উষ্ণ পোশাক পরান:

শীতকালে আপনার বাচ্চাকে গরম এবং আরামদায়ক পোশাক পরান। মনে রাখবেন, যদি পূর্বে থেকে ঘরের তাপমাত্রা উষ্ণ থাকে তাহলে আপনার নবজাতকের খুব মোটা স্তরের গরম কাপড় প্রয়োজন নাও হতে পারে।

ছোট্ট শিশুটিকে আরামদায়ক এবং স্নিগ্ধ বোধ করার জন্য তার হাত-পায়ের জন্য মোজা ও মাথার জন্য টুপি ব্যবহার করতে পারেন।

৬. ভারী কম্বল ব্যবহার করা থেকে বিরত থাকুন:

আপনি মনে করতে পারেন যে, রাতে আপনার ছোট্ট বাচ্চাটিকে একটি উষ্ণ কম্বলের মধ্যে জড়িয়ে রাখা উচিত, তবে এটি করবেন না। SIDS (Sudden Infant Death Syndrome) ঝুঁকি রোধ করতে আপনার নবজাতকের কাছ থেকে কাঁকড়া, কম্বল, বালিশ এবং এ জাতীয় জিনিসগুলি সরিয়ে ফেলুন।

৭. রক্ত ​​সঞ্চালন উন্নত করতে শিশুর শরীর ম্যাসেজ করুন:

রক্ত প্রবাহ এবং রোগ প্রতিরোধ ক্ষমতা উন্নত করতে বিশেষত শীতকালে আপনার নবজাতককে ম্যাসেজ করুন। আপনার বাচ্চাকে ম্যাসেজ করতে আপনি জলপাই তেল, বাদাম তেল বা নারকেল তেল ব্যবহার করতে পারেন।

আপনার বাচ্চাটিকে ম্যাসেজ করার সময় দরজাটি বন্ধ রাখুন যাতে ঘরটি গরম থাকে। আপনি স্নানের সময় থেকে দু’ঘণ্টা আগে আপনার নবজাতকে একটি দুর্দান্ত ম্যাসেজ দিতে পারেন। এছাড়াও, শিশুকে শান্ত হতে এবং আরও ভালভাবে ঘুমাতে সহায়তা করার জন্য শোবার আগে হালকা ম্যাসেজ করতে পারেন।

৮. শিশুর জন্য অনেক বেশি খেলনা সামগ্রী এড়িয়ে চলুন:

ঠান্ডা এবং শুষ্ক আবহাওয়ার আর্দ্রতায় আমাদের ত্বক ফেটে যায়। মনে রাখবেন, আপনার নবজাতকের সংবেদনশীল ত্বক রয়েছে। অতএব, শীতের সময় বাচ্চাদের সাবান, শ্যাম্পু এবং গন্ধযুক্ত পণ্যগুলির অতিরিক্ত ব্যবহার এড়িয়ে চলুন।

তীব্র শুষ্কতার কারণে আপনার নবজাতকের শরীরে চর্মরোগের বিকাশ ঘটতে পারে। নিরাপদ স্থানে খেলতে দিন এবং আপনার বাচ্চাকে নিয়মিত ব্যবহার্য একটি সাধারণ জল দিন স্নান করতে। আপনি সপ্তাহে একবার হালকাভাবে শিশুর সাবানগুলো ব্যবহার করতে পারেন।

৯. নিয়মিত আপনার শিশুর ত্বককে ময়েশ্চারাইজ করুন:

ছোট্ট শিশুটির নাজুক ত্বকে হালকা শিশু ত্বকের ক্রিম বা লোশন দিয়ে ময়েশ্চারাইজ করুন। শীতকালে এটি একটি নবজাতক শিশুর যত্নের অন্যতম সেরা পরামর্শ। কোনও বিশেষ পরামর্শের জন্য আপনি কোনো শিশু ডাক্তারের শরণাপন্ন হতে পারেন।

শিশুর ত্বককে নরম ও কোমল রাখতে আপনি প্রাকৃতিক নিয়ম অথবা শিশুর ত্বকে দুধের ক্রিম বা মাখন (ঘি) দিয়ে ম্যাসেজ করতে পারেন।

১০. একটি হিউমিডিফায়ার ব্যবহার করুন:

শীতের মাসগুলিতে আপনার নবজাতকের ঘরে একটি হিটার লাগাতে পারেন। যদি আপনি অলরেডি এটি ব্যবহার করছেন তবে একটি হিউমিডিফায়ারও ব্যবহার করুন। এটি ঘরে আর্দ্রতার মাত্রা বজায় রাখবে এবং আপনার নবজাতকের ত্বকে আর্দ্রতা হারাতে বাধা দেবে।

১১. নিজের স্বাস্থ্যবিধি বজায় রাখা:

আপনি আপনার সন্তানের জন্য যোগাযোগের প্রথম পয়েন্ট হতে চলেছেন। যে কারণে আপনার নিজের শিশুর সুরক্ষা হিসাবে আপনার পরিষ্কার এবং স্বাস্থ্যবান হওয়া একেবারে প্রয়োজনীয়।

আপনি যখন আপনার সন্তানকে কোলে তুলে নেন তখন প্রতিবারই আপনার হাত ধুয়ে ফেলুন এবং একটি স্যানিটাইজার দিয়ে হাতদুটিকে জীবাণুমুক্ত করুন। নয়তো, জীবাণুগুলি আপনার বাচ্চা অব্দি পৌঁছে রোগের বিস্তার ঘটাতে পারে।

তাই নিশ্চিত হয়ে নিন যে, আপনি এখনই তার রোগ সংক্রমণের সমস্ত পথ বন্ধ করে দিয়েছেন। বাড়িতে কোন অতিথি এলে তাকেও এই একই কাজ করতে অবহিত করুন।

১১. বাড়ির বাইরে যত্ন নেওয়া:

বাড়ির বাইরে পুরোপুরি হিমশীতল না হলে কিছুটা তাজা বাতাস পেতে মাঝে মধ্যে বাড়ি থেকে বের হওয়া ভাল। নিশ্চিত হোন যে, আপনার শিশুকে বাইরে নিয়ে যাওয়ার আগে তার মাথা থেকে পা পর্যন্ত সুরক্ষিত রয়েছে।

শীতল বাতাসে ত্বকের যে কোনও এক্সপোজার তাকে দ্রুত অস্বস্তি করতে পারে। আপনার শিশুর পায়ের আঙ্গুলগুলি কিছুটা শীতল দিকে এবং পেটটি উষ্ণতর দিকে রয়েছে কিনা তা নিশ্চিত করুন। এটি আপনার শিশুর শরীরের জন্য সঠিক তাপমাত্রায় থাকার আদর্শ লক্ষণ।

১২. ডায়েটে স্যুপ অন্তর্ভুক্ত করুন:

যদি আপনার শিশুটি সেই বয়সে পৌঁছে যায় যেখানে সে কঠিন খাবারগুলো গ্রহণে সক্ষম হয়েছে তবে শীত থেকে বাঁচতে স্যুপ তার জন্য হতে পারে একটি দুর্দান্ত উপায়। শীতল পরিবেশে একটি উষ্ণ স্যুপ যে কারও জন্য একেবারে লোভনীয় হতে পারে।

শাকসবজির সাথে মুরগির স্যুপ হতে পারে আপনার সন্তানের জন্য সবচেয়ে ভাল বিকল্প। যদি সম্ভব হয় তবে স্যুপের সাথে কিছু রসুনও অন্তর্ভুক্ত করার চেষ্টা করুন। যেহেতু এটি শীতের অসুস্থতার চিকিত্সার জন্য একটি প্রাকৃতিক প্রতিকার হিসাবে পরিচিত।

এই ১২টি টিপস কঠোর মৌসুমে আপনার নবজাতককে সুরক্ষিত এবং স্বাস্থ্যকর রাখবে। যদি আপনার নবজাতকের সর্দি জ্বর হয়, তবে শীঘ্রই ডাক্তারের সাথে অ্যাপয়েন্টমেন্টের সময় নির্ধারণ করুন।

আপনার যদি শীতের বাচ্চা হয় তবে শীতে নবজাতকের কীভাবে যত্ন নেওয়া যায় সে সম্পর্কে আপনার পরামর্শ এবং পরামর্শ আমাদের সাথে শেয়ার করুন।

আরো পড়ুন- সন্তান লালন পালনে প্যারেন্টিং টিপস

আপনার মতামত দিন

error: Content is protected !!